GoinMart0 item

৳0

Wichy Extra Virgin Coconut Oil (এক্সট্রা ভার্জিন কোকোনাট অয়েল)

Wichy Extra Virgin Coconut Oil (এক্সট্রা ভার্জিন কোকোনাট অয়েল)

0 reviews
0 orders
BDT 1150BDT 11500 % off
  • Product CodeGM - 309
  • Delivery time3-5 days
  • AvailabiltyIn Stock

Descriptions

এক্সট্রা ভার্জিন কোকোনাট অয়েল উপকারিতা:- 

ডা. জাহাঙ্গীর স্যারের কল্যাণে বাংলাদেশে এখন অনেকেই খাবার তেল হিসেবে এক্সট্রা ভার্জিন নারিকেল তেল ব্যবহার করছে। প্রতিদিনের রান্নাবান্নায় অথবা ডায়েট করতে খাবার জন্য শতভাগ বিশুদ্ধ এবং ক্লোড প্রেস এক্সট্রা ভার্জিন নারিকেল তেল হতে পারে আপনার বিশ্বস্ত সঙ্গী।

এক্সট্রা ভার্জিন নারিকেল তেলের প্রচুর স্বাস্থ্য উপকারিতার জন্য একে  সুপার ফুড বলে। আসুন জেনে নিই, আমাদের এক্সট্রা ভার্জিন  নারিকেল তেলের উপকারঃ-

– ওজন কমাবে: এক্সট্রা ভার্জিন নারিকেল তেলে উচ্চ মাত্রায় স্বাস্থ্যকর স্যাচুরেটেট ফ্যাট থাকে যা শরীরে ক্ষতকির অন্যান্য ফ্যাট অপসারন করে আপনার ওজন কমাবে।

– ক্ষুধা ও ফুড ডিপ্রেশন কমায়ঃ নারকিলে তেলের ফ্যাটি এসিডের খুবই মজার ও শক্তিশালী একটা বৈশিষ্ট্য হচ্ছে এটি আপনার শরীরে ক্ষুধা ও ফুড ডিপ্রেশন কমিয়ে দিবে, যা আপনার ওজন কমানোর জন্য ডায়েটিং এ খুবই সহায়ক এবং নারিকেল তেল ক্ষতিকারক অণুজীবকে হত্যা করে।

– পেটের ক্ষতিকারক চর্বি কমায়: যেহেতু নারিকেল তেল ক্ষুধা কমিয়ে দেয়, কাজেই এটি প্রমানিত যে ওজন কমানোর জন্য খুবই সহায়ক। এটি আপনার ফিটনেসের শত্রু তলপটেরে চর্বি গলাতে অসাধারন ভূমিকা রাখে।

– কিটো ডায়েট করতেঃ যারা ডা. জাহাঙ্গীর কবির সারের ভিডিও দেখে কিটো ডায়েট করছেন, তারা জানেন কিটো ডায়েট এর খাদ্য রান্নায় বা বুলেট কফি তৈরিতে এই এক্সট্রা ভার্জিন নারিকেল তেলের ব্যাবহার করার কথা ডাক্তার জাহাঙ্গীর স্যার বলে থাকেন। তাই কিটো ডায়েটের রান্না বান্নায় ও বুলেট কফি তৈরিতে এই এক্সট্রা ভার্জিন তেল ব্যবহার করতে পারবেন।

– সুস্থ্য থাকতেঃ দীর্ঘ দিনের গবেষণায় জানা গেছে যে নিয়মিত নারিকেল তেল খাওয়া লোকেরা, নারিকেল তেল না খাওয়া লোকদের চেয়ে অনেক বেশি সুস্থ্য থাকে।

– হার্ট সুস্থ্য রাখে: নারিকেল তেল শরীরের উপকারী HLD কোলস্টেরেল উৎপাদন করে যা আমাদের হার্টের জন্য খুবই উপকারি। কয়কেটি গবেষণায় দেখা গেছে যে নারিকেল তেল রক্তে উপকারি HLD কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়িয়ে তুলে উন্নত বিপাকীয় কার্যক্রম বজায় রেখে নিশ্চিত ভাবে হার্টের সকল প্রকার রোগের ঝুকি মুক্ত রাখে।

 এক্সট্রা ভার্জিন নারিকেল তেল নিয়ে কিছু সাধারণ প্রশ্ন আছে। অনেক সময় মানুষ জানতে চায় এটা খাওয়া নিরাপদ কি না। উত্তরে বলবো জি নিরাপদ এক্সট্রা ভার্জিন নারিকেল তেল মূলত খাওয়ার জন্যই, এক্সট্রা ভার্জিন নারিকেল তেল সরাসরি এটা গ্রহণ করা যায়। সেই সঙ্গে  হৃদরোগ, ক্যান্সার, অন্যান্য ডিজেনারেটিভ রোগ ঠেকায়। এটা সাধারণত রেফ্রিজারেটরে রাখার প্রয়োজন নেই এবং এটার শেলফ লাইফ প্ল্যান্ট তেলের চেয়ে বেশি। বাজারের রেগুলার নারিকেল তেল সরাসরি গ্রহণ না করারই উত্তম।


– রান্নার ক্ষেত্রে এক্সট্রা ভার্জিন না করলেও ভার্জিন তেল টা ব্যবহার করা যায়। ভার্জিন তেলটাও আমাদের কাছে পাবেন।

  • ত্বকে আর্দ্রতা ও পানির পরিমাণ বজায় রাখে- এক্সট্রা ভার্জিন কোকোনাট অয়েল পুষ্টিগুণে ভরপুর তাই ত্বকে আর্দ্রতার পরিমাণ বজায় রাখতে কার্যকর ভুমিকা পালন করে। গোসলের পরপরই হাতের তালুতে অল্প পরিমাণ এক্সট্রা ভার্জিন কোকোনাট অয়েল নিয়ে মুখে ভালো করে মাসাজ করে নিন। এতে করে ত্বকে পানির পরিমাণ বজায় থাকবে।
  • মাসাজ অয়েল- ভার্জিন কোকোনাট অয়েল এন্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ হওয়ায় মাসাজ অয়েল হিসেবে এর উপযোগিতা অসাধারণ। এটি ত্বকে লুব্রিক্যান্ট হিসেবে কাজ করে বলে ত্বকে পানির পরিমাণ বজায় রাখার পাশাপাশি ত্বকের রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি করে।
  • ত্বকে একজিমা জতীয় রোগ প্রতিরোধ করে।এক্সট্রা ভার্জিন নারিকেল তেল মূলত কোল্ড প্রেসড এবং এটা কম তাপমাত্রায় বের করা হয়। কোল্ড প্রেসড টেকনোলজি প্রাধান্য দেওয়া হয়, কারণ তাপ দিলে পরিমাণে বেশি বের হয়। কোল্ড প্রেসড নারিকেল তেল ঝুনো নারিকেলের গা থেকে বের করে আনা হয়। এতে তেলের পরিমাণ বেশি থাকে। ফলে এটা সাধারণ নারিকেল তেলের চেয়ে বেশি দামি হতে পারে। সেজন্য এই কোল্ড প্রেসড নারিকেল তেল ব্যাপকভাবে ব্যবহার করা হয়। এটা কম তাপমাত্রায় বের করে আনা হয় বলে পুষ্টিগুণ ঠিক থাকে। সেজ্য স্বাস্ত্যসচেতন লোকদের কাছে এটা বেশি প্রাধান্য পেতে পারে, কারণ রক্ত সঞ্চালন ও কার্ডিও ভাসকুলার রোগে এটার প্রভাব বেশি। নারিকেল তেল  ত্বকের যত্নে নানা রকমভাবে কাজে লাগানো যায়। অনেক সেলিব্রিটি বডি ময়েশ্চারাইজার এর জন্য ব্যবহার করে থাকে। নারিকেল তেল ত্বকে আর্দ্রতার পরিমাণ ও কোলাজেন উৎপাদন বাড়ায় ও জ্বালাপোড়া কমায়। সেজন্য ত্বক থাকে সতেজ ও কোমল।
  • তাই এক্সট্রা ভার্জিন নারিকেল তেল সব মৌসুমেই খাওয়া এবং ব্যবহার করা যায়।